কুরআনে আইনস্টাইনের টাইম রিলেটিভিটি?

“আলবার্ট আইনস্টাইনের টাইম রিলেটিভিটি কুরআনে ১৪০০ বছর আগেই এসেছে”, এই দাবিটির সাথে আমরা অনেকেই পরিচিত। প্রচুর ইসলামিক ওয়েবসাইট আছে যেখানে এই দাবিটি প্রচার করা হয়েছে। ইসলামকে সত্য ধর্ম হিসেবে উপস্থাপন করতে, কুরআনকে একটি বৈজ্ঞানিক গ্রন্থ বলে প্রমাণ করতে এটা ইসলামিস্টদের মিরাকলের নামে মিথ্যাচারের আরও একটি উদাহরণ ব্যতীত কিছুই না।

কুরআন বলে, আল্লাহর একদিন মানুষের হাজার বছরের সমান। কিছু ইসলামিস্ট দাবি করে যে, কুরআনের এই কথাটি প্রমাণ করে কুরআনের লেখক আইনস্টাইনের টাইম রিলেটিভিটি সম্পর্কে জানতেন এবং তাই কুরআনের লেখক ১৪০০ আগের কোনো সাধারণ মানুষ হতে পারে না। আয়াতটি উল্লেখ করা হলোঃ

22:47
وَ یَسۡتَعۡجِلُوۡنَکَ بِالۡعَذَابِ وَ لَنۡ یُّخۡلِفَ اللّٰہُ وَعۡدَہٗ ؕ وَ اِنَّ یَوۡمًا عِنۡدَ رَبِّکَ کَاَلۡفِ سَنَۃٍ مِّمَّا تَعُدُّوۡنَ ﴿۴۷﴾
Bengali - Bayaan Foundation
আর তারা তোমাকে আযাব তরান্বিত করতে বলে, অথচ আল্লাহ কখনো তাঁর ওয়াদা খেলাফ করেন না। আর তোমার রবের নিকট নিশ্চয় এক দিন তোমাদের গণনায় হাজার বছরের সমান।

এমন একটি আয়াত তৈরি করার জন্য কারো থিওরী অব রিলেটিভিটি বোঝার প্রয়োজন নেই। আমাদের এই মহাবিশ্বের জন্য যদি কেউ একজন ঈশ্বর কল্পনা করে, তাহলে সেই ঈশ্বরকে সে অবশ্যই একটি বিশাল সত্ত্বা হিসেবে দেখবে। ঈশ্বরের সবকিছুই তার কাছে অনেক বিশাল হবে। তার কল্পনায় ঈশ্বরের যদি দাড়ি থাকে, তাহলে তার কল্পনার ঈশ্বরের দাড়ি নিশ্চয় একজন সাধারণ মানুষের দাড়ির সমান হবে না। তার কল্পনায় ঈশ্বর যদি সর্বদা একটি চেয়ারে বসে থাকে, তাহলে তার কল্পনার ঈশ্বরের চেয়ারটি নিশ্চয় আপনার আমার চেয়ারের সমান হবে না। সেইভাবে একজন মানুষের কল্পনায় ঈশ্বরের একদিন সাধারণ মানুষের একদিনের চেয়ে অনেক বিশাল হওয়াটা খুব স্বাভাবিক। আর তাই, আইনস্টাইনের টাইম রিলেটিভিটি নিয়ে বিন্দুমাত্র ধারণা নেই এমন একজন মানুষ যদি বলে ঈশ্বরের একদিন মানুষের একদিনের চেয়ে অনেক অনেক বিশাল, তাতে আশ্চর্যজনক কোনোকিছুই প্রকাশিত হয় না।

তাছাড়াও, একই কথা ওল্ড টেস্টামেন্টেও পাওয়া যায়। কুরআনের লেখক এটা থেকে অনুপ্রানিত হতে পারে।

হে প্রভু, আমাদের সমস্ত প্রজন্মের জন্য আপনি আমাদের গৃহ ছিলেন।
2 হে ঈশ্বর, পর্বতমালার জন্মের আগে, এই পৃথিবীর এবং জগৎ সৃষ্টির আগে, আপনিই ঈশ্বর ছিলেন। হে ঈশ্বর, আপনি চিরদিন ছিলেন এবং আপনি চিরদিন থাকবেন|
3 এই পৃথিবীতে আপনিই মানুষকে এনেছেন। আপনি পুনরায় তাদের ধূলোয় পরিণত করেন।
4 আপনার কাছে হাজার বছর গতকালের মত, যেন গত রাত্রি।
সামসঙ্গীত অধ্যায় 90

মুসলিমরা যদি এটি মিরাকল বলতে চায়, তাহলে তাদের উচিত হবে এটি বাইবেলের মিরাকল বলা, কুরআনের নয়। কেননা, এটি বাইবেল আগে উল্লেখ করেছে।

Marufur Rahman Khan

Marufur Rahman Khan is a Bangladeshi Atheist, Feminist, Secularist Blogger.

3 thoughts on “কুরআনে আইনস্টাইনের টাইম রিলেটিভিটি?

  • April 17, 2020 at 2:21 AM
    Permalink

    বাইবেল তো আল্লাহ তায়ালারই গ্রন্থ গাধা। এটা জান না? যেটাকে আমরা ইঞ্জিল বলি, ঈসা আঃ এর নাজিল করা হয়েছিল। সেটাই বাইবেল। যদিও আগের বাইবেল আর এখনকার বাইবেলে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। তবুও, কিছু কথা আজো অপরিবর্তিত আছে।

    Reply
    • April 17, 2020 at 2:40 AM
      Permalink

      এটা আপনাদের বিশ্বাসের অংশ, আপনারা খ্রিস্টানদের ধর্মগ্রন্থকেও আল্লাহর পাঠানো ধর্মগ্রন্থ বলে বিশ্বাস করেন। কোনোকিছু বিশ্বাস করলেই তো সেটা সত্য হয়ে যায় না। সুতরাং, আপনাদের বিশ্বাস শোনাতে আসবেন না। আপনারা কি বিশ্বাস করেন আর কি করেন না তা তো জানি।

      আর বাইবেলের পরিবর্তিত অংশ কোনটা আর অপরিবর্তিত অংশ কোনটা সেসব আগে ঠিক করে আসেন। যেই অংশ নিজেদের জন্য সুবিধাজনক সেই অংশ অপরিবর্তিত আর যেই অংশ নিজেদের জন্য অসুবিধাজনক সেই অংশ পরিবর্তিত বলে দাবি করলে কিন্তু হবে না।

      Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *