তাফসীরে ইবনে কাসীর|ইসলামিক ফাউন্ডেশন

তাফসীর ইবন কাসীর হচ্ছে ইসলামের ইতিহাসে কালজয়ী মুহাদ্দিস মুফাসসির আল্লামা হাফিয ইবন কাসীরের একনিষ্ঠ নিরলস সাধনা ও অক্লান্ত পরিশ্রমের অমৃত ফল। তাফসীর জগতে এ যে বহুল পঠিত সর্ববাদী সম্মত নির্ভরযোগ্য এক অনন্য সংযোজন ও অবিস্মরণীয় কীর্তি এতে সন্দেহ সংশয়ের কোন অবকাশ মাত্র নেই। হাফিজ ইমাদুদ্দীন ইবনে কাসীরের এই প্রামাণ্য তথ্যবহুল, সর্বজন গৃহীত ও বিস্তারিত তাফসীর পৃথিবীর প্রায় সকল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রেফারেন্স পাঠ্যপুস্তক হিসেবে গণ্য। সর্বাধিক প্রামাণ্য তাফসীর হওয়ার কারণেই এর অনবদ্যতা ও শ্রেষ্ঠত্বকে সকল যুগের বিদগ্ধ মনীষীরা সমভাবে অকপটে এবং একবাক্যে স্বীকার করে নিয়েছেন। তাই পৃথিবীর প্রায় প্রতিটি মুসলিম অধ্যুষিত দেশে, সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের, এমনকি ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষায়তনের গ্রন্থাগারেও সর্বত্রই এটি বহুল পঠিত, সুপরিচিত, সমাদৃত এবং হাদীস-সুন্নাহর আলোকে এক স্বতন্ত্র মর্যাদার অধিকারী।

ইতিপূর্ব নাস্তিক্য ডট কমের পাঠকদের জন্য যেই বাঙলা অনুবাদটি উপহার দেয়া হয়েছিল, তা ছিল তাফসীর পাবলিকেশন্সের অনুবাদ। সেই অনুবাদটিতে অত্যন্ত চালাকির সাথে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বাদ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানের এই বাঙলা অনুবাদটি ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে প্রকাশিত, এবং আগেরটির থেকে উন্নতমানের অনুবাদ। এই অনুবাদটিতে এমন অনেক গুলো বিষয় রয়েছে, যা আগের অনুবাদটিতে সুকৌশলে লুকানো হয়েছিল। আগ্রহী পাঠকগণ মন দিয়ে বইগুলো পড়লেই আমাদের কষ্ট সার্থক হবে। 

খণ্ড ১

ইবনে কাসীর

খণ্ড ২

ইবনে কাসীর

খণ্ড ৩ 

ইবনে কাসীর

খণ্ড ৪

ইবনে কাসীর

খণ্ড ৫ 

ইবনে কাসীর

খণ্ড ৬

ইবনে কাসীর

খণ্ড ৭

ইবনে কাসীর

খণ্ড ৮

ইবনে কাসীর

খণ্ড ৯

ইবনে কাসীর

খণ্ড ১০

ইবনে কাসীর

খণ্ড ১১

ইবনে কাসীর

2 thoughts on “তাফসীরে ইবনে কাসীর|ইসলামিক ফাউন্ডেশন

  • April 11, 2020 at 1:58 AM
    Permalink

    صحيح বহুবচন।প্রায় দেড় যুগ পরিশ্রমের পর ১৯৮৪ সালে ড. মুহাম্মাদ মুজীবুর রাহমান তাফসীরটির বাংলা অনুবাদ সম্পন্ন করেন। তাফসীর খন্ডগুলিতে যে ইসরাঈলী রিওয়ায়াত এবং দুর্বল কিংবা যঈফ হাদীস রয়েছে তা বাছাই করে বাদ দেওয়া হয়েছে। তিনি সকল হাদীসই লিপিবদ্ধ করেছিলেন এবং হাদীসের মান উল্লেখ করেছিলেন যাতে কোনটা কতটা গুরুত্ব দেওয়া উচিত তা নিজেই নির্ধারণ করা যায়। নিরীক্ষার ভিত্তিতে মুহাদ্দিসগণ হাদীসকে মূলত তিনভাগে ভাগ করেছেন : সহীহ বা বিশুদ্ধ, হাসান বা ভাল অর্থাত মোটামুটি গ্রহণযোগ্য ও যয়ীফ বা দুর্বল । যয়ীফ হাদীস  দুর্বলতার কারণ ও দুর্বলতার পর্যায়ের ভিত্তিতে বিভিন্নভাগে বিভক্ত।  সহীহ বা বিশুদ্ধ হাদীসের সংজ্ঞা হলো :

    মুহাদ্দিসগণের পরিভাষায় যে হাদীসের মধ্যে ৫টি শর্ত পূরণ হয়েছে তাকে সহীহ হাদীস বলা হয় –

    আদালত :হাদীসের সকল রাবী পরিপূর্ণ সত ও বিশ্বস্ত বলে প্রমাণিত ।

    যাবত :সকল রাবীর “নির্ভুল বর্ণনার ক্ষমতা’ পূর্ণরুপে বিদ্যমান বলে প্রমাণিত

    ইত্তিসাল :সনদের প্রত্যেক রাবী তাঁর উর্দ্ধতন রাবী থেকে স্বকর্ণে শুনেছেন বলে প্রমাণিত ।

    শুযুয মুক্তি বা শায না হওয়া :হাদীসটি অন্যান্য প্রামাণ্য বর্ণনার বিপরীত নয় বলে প্রমাণিত ।

    ইল্লাত মুক্তি :হাদীসটির মধ্যে সূক্ষ্ণ কোন সনদগত বা অর্থগত ত্রুটি নেই বলে প্রমাণিত।

    প্রথম তিনটি শর্ত সনদ কেন্দ্রিক ও শেষের দুইটি শর্ত মূলত অর্থ কেন্দ্রিক। এখানে এগুলোর বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেয়া হচ্ছে না।

    তবে সাধারণের বুঝার জন্য যে বিষয়গুলো জানা প্রয়োজন সেগুলো হলো :

    সনদ  : সনদ বলতে হাদীসের সূত্র বা Reference বুঝানো হয়। হাদীসের বর্ণনাকারীদের তালিকা। এটি সাধারণত হাদীসের শুরুতেই উল্লেখ করা হয়।

    মতন : মতন হলো হাদীসের মূল ভাষা। সনদ বাদে মূল কথা ও তার শব্দসমূহ হলো “মতন”।

    রাবী: হাদীসের বর্ণনাকারীগণকে ‘রাবী’ বলে।

    হাদীসের সনদ এর গুরুত্ব সম্পর্কে সহীহ মুসলিম শরীফের মুকাদ্দামায় রয়েছে তাবেয়ী মুহাম্মাদ ইবনু সীরীন বলেন : এই জ্ঞান হলো দ্বীন । সুতরাং কার নিকট থেকে তোমাদের দ্বীন গ্রহণ করছ তা দেখে নিবে।

    দ্বিতীয় শতকের অন্যতম মুহাদ্দিস সুফিয়ান ইবনু সাঈদ আস-সাওরী বলেন : “সনদ মুমিনের অস্ত্র স্বরুপ”।

    প্রসিদ্ধ তাবি-তাবিয়ী আব্দুল্লাহ ইবনুল মুবারক বলেন : “সনদ বর্ণনা ও সংরক্ষণ দ্বীনের অবিচ্ছেদ্য অংশ । সনদ বর্ণনার ব্যবস্থা না থাকলে যে যা চাইত তাই বলত।

    হাদীসের সনদ ও মতন আরো সহজ করে বুঝানোর জন্য এই হাদীসটিকে উদাহরণ হিসেবে ধরা যেতে পারে।

    ইমাম মালিক ইবনু আনাস তাঁর মুয়াত্তা গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন :

    “মালিক, আবুয যিনাদ (১৩০হি) থেকে, তিনি আ’রাজ (১১৭হি) থেকে, তিনি আবু হুরাইরা (৫৯হি) থেকে, রাসূলুল্লাহ (সা) শুক্রবারের কথা উল্লেখ করে বেলেন : এই দিনের মধ্যে একটি সময় আছে কোন মুসলিম যদি সেই সময়ে দাঁড়িয়ে সালাতরত অবস্থায় আল্লাহর নিকট কিছু প্রার্থনা করে তবে আল্লাহ তাকে তা প্রদান করেন। রাসূলুল্লাহ (সা) হাত দিয়ে ইঙ্গিত করেন যে, এই সুযোগটি স্বল্প সময়ের জন্য”।

    উপরের হাদীসের প্রথম অংশ “মালিক, আবুয যিনাদ থেকে…………..আবূ হুরাইরা থেকে” হাদীসের সনদ বা সূত্র।

    শেষে উল্লেখকৃত তথা রাসূলের (সা) বাণীটুক মতন বা বক্তব্য। মুহাদ্দিসগণের পরিভাষায় হাদীস বলতে শুধু নিচের অংশটুকুকে বুঝায় না বরং সনদ ও মতনের সম্মিলিত রুপই হাদীস।

    বর্ণনাকারীর গুণ বিচার করে সহীহ হাদীসকে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায় :

    সহীহ লিজাতিহী ( নিজের গুণে সহীহ ) : যে হাদীসের সনদ অবিচ্ছিন্ন হয়, বর্ণনাকারীরা ন্যায়পরায়ণ ও পূর্ণ আয়ত্ব শক্তির অধিকারী হন এবং সনদটি শা’য ও মু’আল্লাল না হয় সে হাদীসকে সহীহ বা সহীঞ লিযাতিহী বলে । গ্রহণযোগ্য হাদীসগুলোর মধ্যে সহীহ লিযাতিহী’র মর্যাদা সবচেয়ে বেশী।

    সহীহ লিগাইরিহী ( অন্যের কারণে সহীহ ) : এটি মূলথ হাসান লিযাতিহী। যদি হাসান হাদীসের সনদ সংখ্যা অধিক হয় তাহলে এর দ্বারা হাসান বর্ণনাকারীর মধ্যে যে ঘাটতি ছিল তার পূরণ হয়ে যায়। এরুপ অধিক সনদে বর্ণিত হাসান হাদীসকে সহীহ লিগাইরিহী বলে।

    গ্রহণযোগ্য  হাদীসের মধ্যে অন্যতম হলো ‘হাসান’ হাদীস ।

    হাসান হাদীস : হাসান হাদীসের মধ্যেও সহীহ হাদীসের মত উপরোক্ত ৫টি শর্ত বিদ্যমান । কিন্তু দ্বিতীয় শর্তের ক্ষেত্রে যদি সামান্য দুর্বলতা দেখা যায় তবে হাদীসটিকে হাসান বলা হয়। অর্থাত হাদীসের সনদের রাবীগণ ব্যক্তিগতভাবে, সত, প্রত্যেকে হাদীসটি উর্দ্ধতন রাবী থেকে স্বকর্ণে শুনেছেন বলে প্রমাণিত, হাদীসটির মধ্যে “শুযুয’ ও ইল্লাত নেই। তবে সনদের কোন রাবীর “নির্ভুল বর্ণনার’ ক্ষমতা বা ‘যাবত’ কিছুটা দুর্বল বলে বুঝা যায় । তাঁর বর্ণিত হাদীসের মধ্যে কিছু অনিচ্ছাকৃত ভুল-ত্রুটি লক্ষ্য করা যায়। এইরুপ রাবী’র বর্ণিত হাদীসকে ‘হাসান’ হাদীস বলা হয়।

    হাসান হাদীস আবার দুই প্রকারে বিভক্ত :

    হাসান লিযাতিহী ( নিজের গুণে হাসান ): যে হাদীসে বর্ণনাকারীর স্মরণশক্তিতে কিছুটা ঘাটতি রয়েছে কিন্তু সহীহ হাদীসের অবশিষ্ট চারটি শর্ত বহাল রয়েছে তাকে হাসান লিযাতিহী বলে।

    হাসান লিগায়রিহী ( অন্যের কারণে হাসান ) : এটি মুলত দুর্বল হাদীস। কিন্তু যখন তা একাধিক সূত্রে বর্ণিত হয় এবং হাদীসটির বর্ণনাকারী ফাসেক বা মিথ্যার দোষে দোষী হওয়ার কারণে দুর্বল না হয়, তখন এটি অন্যান্য সূত্রগুলোর কারণে ‘হাসান’-এর পর্যায়ভুক্ত হয়ে যায়। তবে এর স্তরটি ‘হাসান লিযাতিহী’র চেয়ে নিম্ন পর্য়ায়ের

    এর আভিধানিক অর্থ সুস্থ। সাধারণত মানুষের শারীরিক সুস্থতার জন্য ‘সহিহ’ ব্যবহৃত হয়, যেমন হাদিসে এসেছে: ” وَأَنْتَ صَحِيحٌ ” ‘তুমি সুস্থাবস্থায়’ এ থেকেই সনদ ও মতন দোষমুক্ত হলে হাদিসকে সহিহ বলা হয়। ‘সহিহ’-র পারিভাষিক সংজ্ঞা প্রসঙ্গে হাফিজ ইবনে হাজার আসকালানী বলেন : هو ما نقله العدل تام الضبط متصل السند غيرمعلل ولا شاذ . “যে হাদিস মুত্তাসিল সনদ তথা অবিচ্ছিন্ন সনদ পরম্পরায় বর্ণিত হয়, রাবী বা বর্ণনাকারী আদিল ও পূর্ণ আয়ত্বশক্তির অধিকারী হয়, এবং সনদটি শায কিংবা মুআল্লাল নয়; এমন হাদিস কে সহিহ বলে। মোটকথা, হাদিস সহিহ হওয়ার জন্য পাঁচটি শর্ত রয়েছে : ১. সনদ মুত্তাসিল হওয়া। ২. রাবির আদিল হওয়া। ৩. রাবির দ্বাবিত হওয়া। ৪. শায না হওয়া। ৫. মু‘আল্লাল না হওয়া। প্রথম শর্ত: اتصال السند বা সনদ মুত্তাসিল হওয়া: সনদ মুত্তাসিল হওয়ার অর্থ, হাদিসের সনদে বিদ্যমান প্রত্যেক রাবি (বর্ণনাকারী) তার শায়খ (শিক্ষক) থেকে সরাসরি হাদিস শ্রবণ করেছেন প্রমাণিত হওয়া। যেমন গ্রন্থকার মুহাদ্দিস বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (প্রথম উস্তাদ), তিনি বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (দ্বিতীয় উস্তাদ), তিনি বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (তৃতীয় উস্তাদ), তিনি বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (চতুর্থ উস্তাদ)। এভাবে প্রত্যেক রাবি স্বীয় শায়খ থেকে শ্রবণ করেছে নিশ্চিত করলে সনদ মুত্তাসিল। শায়খের অনুমতি গ্রহণ করা, শায়খকে হাদিস শুনিয়ে সম্মতি নেওয়াকে সরাসরি শ্রবণ করা বলা হয়। দ্বিতীয় শর্ত: عدالة الراوى বা রাবির ‘আদল: সহিহ হাদিসের দ্বিতীয় শর্ত রাবির ‘আদল’ হওয়া। عدل ‘আদ্‌ল’ শব্দের অর্থ সোজা ও বক্রতাহীন রাস্তা, যেমন বলা হয় طريق عدل ‘সোজা রাস্তা’। পাপ পরিহারকারী ও সুস্থরুচি সম্পন্ন ব্যক্তি ন্যায় ও সোজা রাস্তার অনুসরণ করে, তাই তাকে ‘আদ্‌ল’ বা ‘আদিল’ বলা হয়। عادل কর্তাবাচক বিশেষ্য, অর্থ ন্যায়পরায়ণ ব্যক্তি। হাদিসের পরিভাষায় দীনদারী ও সুস্থরুচিকে عدالة বলা হয়। ‘আদিল’ এর পারিভাষিক সংজ্ঞা: মুসলিম, বিবেকী, সাবালক, দীন বিরোধী কর্মকাণ্ড থেকে মুক্ত ও সুস্থ রুচির অধিকারী ব্যক্তিকে উসুলে হাদিসের পরিভাষায় ‘আদিল’ বলা হয়। নিম্নে প্রত্যেকটি শর্ত প্রসঙ্গে আলোকপাত করা হলো: মুসলিম : রাবির ‘আদিল হওয়ার জন্য মুসলিম হওয়া জরুরি। অতএব কাফের ‘আদিল’ নয়, তার হাদিস সহিহ নয়। কাফের কুফরি অবস্থায় হাদিস শ্রবণ করে যদি মুসলিম হয়ে বর্ণনা করে, তাহলে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য। কারণ সে সংবাদ দেওয়ার সময় আদিল, যদিও গ্রহণ করার সময় আদিল ছিল না। যেমন জুবাইর ইব্‌ন মুতয়িম রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু বলেন: «سَمِعْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقْرَأُ فِي الْمَغْرِبِ بِالطُّورِ» “আমি নবি সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামকে মাগরিবের সালাতে সূরা তূর পড়তে শুনেছি”। তিনি শুনেছেন কাফের অবস্থায়, আর বর্ণনা করেছেন মুসলিম অবস্থায়। (বুখারি ও মুসলিম) সাবালিগ : রাবির আদিল হওয়ার জন্য সাবালিগ হওয়া জরুরি। কেউ শৈশবে হাদিস শ্রবণ করে যদি সাবালিগ হয়ে বর্ণনা করে, তাহলে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য, সাবালিগ হওয়ার পূর্বে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য নয়। কতক সাহাবির ক্ষেত্রে এ শর্ত প্রযোজ্য নয়, যেমন ইব্‌ন আব্বাস, ইব্‌ন যুবায়ের ও নুমান ইব্‌ন বাশির প্রমুখ, তাদের হাদিস শৈশাবস্থায় গ্রহণ করা হয়েছে। বিবেকবান : রাবির আদিল হওয়ার জন্য বিবেক সম্পন্ন হওয়া জরুরি। বিবেকহীন ও পাগল ব্যক্তির বর্ণনা গ্রহণযোগ্য নয়। পাগল দু’প্রকার: স্থায়ী পাগল ও অস্থায়ী পাগল। স্থায়ী পাগলের হাদিস কোনো অবস্থায় গ্রহণযোগ্য নয়। অস্থায়ী পাগলের মধ্যে যদি সুস্থাবস্থায় সহিহর অন্যান্য শর্ত বিদ্যমান থাকে, তাহলে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য, তবে শ্রবণ করা ও বর্ণনা করা উভয় অবস্থায় সুস্থ থাকা জরুরি। দীনদারী : রাবির ‘আদিল হওয়ার জন্য দীনদার হওয়া জরুরি, তাই পাপের উপর অটল ব্যক্তি আদিল নয়। পাপ হলেই ‘আদল বিনষ্ট হবে না, কারণ মুসলিম নিষ্পাপ নয়, তবে বারবার পাপ করা কিংবা কবিরা গুনায় লিপ্ত থাকা ‘আদল পরিপন্থী। দীনের অপব্যাখ্যাকারী, তাতে সন্দেহ পোষণকারী ও বিদ‘আতির হাদিস গ্রহণ করা সম্পর্কে আহলে ইলমগণ বিভিন্ন শর্তারোপ করেছেন। সুস্থ রুচিবোধ : রাবির ‘আদল হওয়ার জন্য সুস্থ রুচিবোধ সম্পন্ন হওয়া জরুরি। সুস্থ রুচিবোধের নির্দিষ্ট কোনো সংজ্ঞা নেই। প্রত্যেক সমাজের নির্দিষ্ট প্রথা, সে সমাজের জন্য মাপকাঠি, যা স্থান-কাল-পাত্র ভেদে নানা প্রকার হয়। সাধারণত সৌন্দর্য বিকাশ ও আভিজাত্য প্রকাশকারী কর্মসমূহ সম্পাদন করা এবং তুচ্ছ ও হেয় প্রতিপন্নকারী কর্মসমূহ পরিত্যাগ করাকে সুস্থ রুচিবোধের পরিচায়ক বলা হয়। হাফেয ইব্‌ন হাজার রাহিমাহুল্লাহ ‘আদল’ এর সংজ্ঞা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আদল’ ব্যক্তির মধ্যে এমন যোগ্যতা, যা তাকে তাকওয়া ও রুচিবোধ আঁকড়ে থাকতে বাধ্য করে”। অতএব ফাসেক ও আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী ‘আদিল’ নয়, যদিও সে সত্যবাদী। জামাত ত্যাগকারী ‘আদিল’ নয়, যদিও সে সত্যবাদী, সুতরাং তাদের বর্ণনাকৃত হাদিস সহিহ নয়। আল্লাহ তাআলা বলেন, يَٰٓأَيُّهَا ٱلَّذِينَ ءَامَنُوٓاْ إِن جَآءَكُمۡ فَاسِقُۢ بِنَبَإ فَتَبَيَّنُوٓاْ أَن تُصِيبُواْ قَوۡمَۢا بِجَهالَة فَتُصۡبِحُواْ عَلَىٰ مَا فَعَلۡتُمۡ نَٰدِمِينَ ٦ [الحجرات: ٦ “হে ঈমানদারগণ, যদি কোনো ফাসেক তোমাদের কাছে কোনো সংবাদ নিয়ে আসে, তাহলে তোমরা তা যাচাই করে নাও। এ আশঙ্কায় যে, তোমরা অজ্ঞতাবশত কোনো কওমকে আক্রমণ করে বসবে, ফলে তোমরা তোমাদের কৃতকর্মের জন্য লজ্জিত হবে”। ফাসেক ব্যক্তির সংবাদ যাচাই ব্যতীত গ্রহণ করা যাবে না, পক্ষান্তরে আদিল ব্যক্তির সংবাদ গ্রহণযোগ্য। আল্লাহ বলেন, وَأَشۡهِدُواْ ذَوَيۡ عَدۡلٖ مِّنكُمۡ وَأَقِيمُواْ ٱلشَّهَٰدَةَ لِلَّهِۚ ٢ [الطلاق : ٢ “আর তোমাদের মধ্য থেকে ন্যায়পরায়ণ দু’জন সাক্ষী বানাবে। আর আল্লাহর জন্য সঠিক সাক্ষ্য দেবে।”। এ আয়াতে আল্লাহ ‘আদিল’ ব্যক্তিদের সাক্ষীরূপে গ্রহণ করার নির্দেশ দিয়েছেন। সারাংশ : ‘আদিল’ ব্যক্তির মধ্যে দু’টি গুণ থাকা জরুরি: দীনদারী ও সঠিক রুচিবোধ। এ দু’টি গুণকে ‘আদালত’ বলা হয়। কখনো ‘আদিল’ ব্যক্তির জন্য ক্রিয়াবিশেষ্য ‘আদ্‌ল’ শব্দ ব্যবহার করা হয়, যেমন লেখক বলেছেন: يرويه عدل এখানে ‘আদ্‌ল’ অর্থ ‘আদিল’। অত্র গ্রন্থে আমরা আদিল, আদালত ও আদ্‌ল শব্দগুলো অধিক ব্যবহার করব, তাই পাঠকবর্গ ভালো করে স্মরণ রাখুন। তৃতীয় শর্ত: ضبط الراوىরাবির জাবত বা সংরক্ষণ: সহিহ হাদিসের দ্বিতীয় শর্ত রাবির ‘দাবত’। ضبط ক্রিয়াবিশেষ্য, আভিধানিক অর্থ নিয়ন্ত্রণ। এ থেকে যিনি শায়খ থেকে হাদিস শ্রবণ করে নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হন, তাকে ضابط বলা হয়। ‘দ্বাবিত’ কর্তাবাচক বিশেষ্য, অর্থ সংরক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণকারী। ضبط এর পারিভাষিক অর্থ: শায়খ থেকে শ্রবণ করা হাদিস হ্রাস, বৃদ্ধি ও বিকৃতি ব্যতীত অপরের নিকট পৌঁছে দেওয়াই ضبط। ضبط দু’প্রকার: স্মৃতি শক্তির জাবত ও খাতায় লিখে জাবত। সাহাবি ও প্রথম যুগের তাবেয়িগণ স্মৃতি শক্তির উপর নির্ভর করতেন, পরবর্তীতে লেখার ব্যাপক প্রচলন হয়। তখন থেকে স্মৃতি শক্তি অপেক্ষা লেখার উপর নির্ভরতা বৃদ্ধি পায়, তবে লিখিত পাণ্ডুলিপি নিজ দায়িত্বে সংরক্ষণ করা জরুরি। চতুর্থ শর্ত : عدم الشذوذ বা ‘শায’- না হওয়া : ‘মাকবুল বা গ্রহণযোগ্য রাবি যদি তাদের চেয়ে উত্তম বা অধিক নির্ভরযোগ্য রাবিদের বিপরীত বর্ণনা করে, তাহলে তাদের বর্ণনাকে শায বলা হয়’। সুতরাং কোন হাদিস সহী হতে হলে এমন না হওয়া। মকবুল অর্থ গ্রহণযোগ্য রাবি, যার একা বর্ণিত হাদিস ন্যূনতম পক্ষে ‘হাসানে’-র মর্যাদা রাখে। মকবুলের চেয়ে উত্তম রাবিকে সেকাহ বলা হয়, যার একা বর্ণিত হাদিস ‘সহিহ’-র মর্যাদা রাখে। পঞ্চম শর্ত : عدم العلة কোন ধরনের ইল্লত না থাকা : ইল্লত দ্বারা উদ্দেশ্য সুপ্ত ও গোপন ইল্লত বা ত্রুটি, বিজ্ঞ মুহাদ্দিস ব্যতীত যা কেউ বলতে পারে না। সনদ ও মতন উভয় স্থানে দোষণীয় ইল্লত হতে পারে। সহিহ হাদিসের উদাহরণ : حدثنا الحميدي (عبد الله بن الزبير) قال حدثنا سفيان قال حدثنا يحيى بن سعيد الأنصاري قال أخبرني محمد بن إبراهيم التيمي أنه سمع علقمة بن وقاص الليثي يقول سمعت عمر بن الخطاب رضي الله عنه على المنبر قال سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول * إنما الأعمال بالنيات وإنما لكل امرئ ما نوى فمن كانت هجرته إلى دنيا يصيبها أو إلى امرأة ينكحها فهجرته إلى ما هاجر إليه – বর্ণিত হাদিসটির সনদে ইমাম বুখারি থেকে রাসুল সা. পর্যন্ত ৬ জন রাবী রয়েছে। যথা: ১. হুমাইদি (আবদুল্লাহ বিন জুবায়ের) ২. সুফিয়ান ৩. ইয়াহইয়া ইবনে সাঈদ আল আনসারি ৪. মুহাম্মাদ ইবনে ইবরাহিম আত তাইমী ৫. আলকামাহ ইবনে ওয়াক্কাস আল লাইসি ৬. সাহাবি উমর ইবনে খাত্তাব রা. উপরোক্ত প্রত্যেক রাবি নিজ শায়খ থেকে হাদিসটি শুনেছেন যা হাদিসটির সনদে স্পষ্ট উল্লেখ রছেছে। তাই সনদটি মুত্তাসিল। প্রত্যেক রাবী আদিল ও পূর্ণরুপে জাবিত ছিলেন। তাছাড়া বর্ণিত হাদিসটি শায বা মুয়াল্লাল নয়। এ হাদিসটি ইমাম বুখারি রহ. তার সহীহ বুখারিতে সর্বপ্রথম পেশ করেছেন। এতে সহিহ হাদিসের পাঁচটি শর্ত পূর্ণরুপে বিদ্যমান রয়েছে। তাই নি:সন্দেহে এটি একটি সহিহ হাদিস। ।

    Reply
  • April 11, 2020 at 3:41 AM
    Permalink

    প্রায় দেড় যুগ পরিশ্রমের পর ১৯৮৪ সালে ড. মুহাম্মাদ মুজীবুর রাহমান তাফসীরটির বাংলা অনুবাদ সম্পন্ন করেন। তাফসীর খন্ডগুলিতে যে ইসরাঈলী রিওয়ায়াত এবং দুর্বল কিংবা যঈফ হাদীস রয়েছে তা বাছাই করে বাদ দেওয়া হয়েছে। তিনি সকল হাদীসই লিপিবদ্ধ করেছিলেন এবং হাদীসের মান উল্লেখ করেছিলেন যাতে কোনটা কতটা গুরুত্ব দেওয়া উচিত তা নিজেই নির্ধারণ করা যায়। নিরীক্ষার ভিত্তিতে মুহাদ্দিসগণ হাদীসকে মূলত তিনভাগে ভাগ করেছেন : সহীহ বা বিশুদ্ধ, হাসান বা ভাল অর্থাত মোটামুটি গ্রহণযোগ্য ও যয়ীফ বা দুর্বল । আর তিনি একজন অত্যন্ত ভালো মানুষ কিন্তু কোনো মানুষই সম্পূর্ণ ত্রুটিমুক্ত নেই তাই আল্লাহর আরবি কুরআন ছাড়া কোনো গ্রন্থই শতভাগ সত‍্য হওয়া সম্ভব নয় এটাই স্বাভাবিক।যয়ীফ হাদীস  দুর্বলতার কারণ ও দুর্বলতার পর্যায়ের ভিত্তিতে বিভিন্নভাগে বিভক্ত । আর তারা সবাই সব রকমের হাদীসই লিপিবদ্ধ করেছেন কিন্তু গুরুত্বপূর্ণতা আর কতটুকু বিশ্বাসযোগ্য তা বুঝাতে হাদীসের মান নিম্নে উল্লেখ করে রেখেছেন ।  সহীহ বা বিশুদ্ধ হাদীসের সংজ্ঞা হলো :

    মুহাদ্দিসগণের পরিভাষায় যে হাদীসের মধ্যে ৫টি শর্ত পূরণ হয়েছে তাকে সহীহ হাদীস বলা হয় –

    আদালত :হাদীসের সকল রাবী পরিপূর্ণ সত ও বিশ্বস্ত বলে প্রমাণিত ।

    যাবত :সকল রাবীর “নির্ভুল বর্ণনার ক্ষমতা’ পূর্ণরুপে বিদ্যমান বলে প্রমাণিত

    ইত্তিসাল :সনদের প্রত্যেক রাবী তাঁর উর্দ্ধতন রাবী থেকে স্বকর্ণে শুনেছেন বলে প্রমাণিত ।

    শুযুয মুক্তি বা শায না হওয়া :হাদীসটি অন্যান্য প্রামাণ্য বর্ণনার বিপরীত নয় বলে প্রমাণিত ।

    ইল্লাত মুক্তি :হাদীসটির মধ্যে সূক্ষ্ণ কোন সনদগত বা অর্থগত ত্রুটি নেই বলে প্রমাণিত।

    প্রথম তিনটি শর্ত সনদ কেন্দ্রিক ও শেষের দুইটি শর্ত মূলত অর্থ কেন্দ্রিক। এখানে এগুলোর বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেয়া হচ্ছে না।

    তবে সাধারণের বুঝার জন্য যে বিষয়গুলো জানা প্রয়োজন সেগুলো হলো :

    সনদ  : সনদ বলতে হাদীসের সূত্র বা Reference বুঝানো হয়। হাদীসের বর্ণনাকারীদের তালিকা। এটি সাধারণত হাদীসের শুরুতেই উল্লেখ করা হয়।

    মতন : মতন হলো হাদীসের মূল ভাষা। সনদ বাদে মূল কথা ও তার শব্দসমূহ হলো “মতন”।

    রাবী: হাদীসের বর্ণনাকারীগণকে ‘রাবী’ বলে।

    হাদীসের সনদ এর গুরুত্ব সম্পর্কে সহীহ মুসলিম শরীফের মুকাদ্দামায় রয়েছে তাবেয়ী মুহাম্মাদ ইবনু সীরীন বলেন : এই জ্ঞান হলো দ্বীন । সুতরাং কার নিকট থেকে তোমাদের দ্বীন গ্রহণ করছ তা দেখে নিবে।

    দ্বিতীয় শতকের অন্যতম মুহাদ্দিস সুফিয়ান ইবনু সাঈদ আস-সাওরী বলেন : “সনদ মুমিনের অস্ত্র স্বরুপ”।

    প্রসিদ্ধ তাবি-তাবিয়ী আব্দুল্লাহ ইবনুল মুবারক বলেন : “সনদ বর্ণনা ও সংরক্ষণ দ্বীনের অবিচ্ছেদ্য অংশ । সনদ বর্ণনার ব্যবস্থা না থাকলে যে যা চাইত তাই বলত।

    হাদীসের সনদ ও মতন আরো সহজ করে বুঝানোর জন্য এই হাদীসটিকে উদাহরণ হিসেবে ধরা যেতে পারে।

    ইমাম মালিক ইবনু আনাস তাঁর মুয়াত্তা গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন :

    “মালিক, আবুয যিনাদ (১৩০হি) থেকে, তিনি আ’রাজ (১১৭হি) থেকে, তিনি আবু হুরাইরা (৫৯হি) থেকে, রাসূলুল্লাহ (সা) শুক্রবারের কথা উল্লেখ করে বেলেন : এই দিনের মধ্যে একটি সময় আছে কোন মুসলিম যদি সেই সময়ে দাঁড়িয়ে সালাতরত অবস্থায় আল্লাহর নিকট কিছু প্রার্থনা করে তবে আল্লাহ তাকে তা প্রদান করেন। রাসূলুল্লাহ (সা) হাত দিয়ে ইঙ্গিত করেন যে, এই সুযোগটি স্বল্প সময়ের জন্য”।

    উপরের হাদীসের প্রথম অংশ “মালিক, আবুয যিনাদ থেকে…………..আবূ হুরাইরা থেকে” হাদীসের সনদ বা সূত্র।

    শেষে উল্লেখকৃত তথা রাসূলের (সা) বাণীটুক মতন বা বক্তব্য। মুহাদ্দিসগণের পরিভাষায় হাদীস বলতে শুধু নিচের অংশটুকুকে বুঝায় না বরং সনদ ও মতনের সম্মিলিত রুপই হাদীস।

    বর্ণনাকারীর গুণ বিচার করে সহীহ হাদীসকে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায় :

    সহীহ লিজাতিহী ( নিজের গুণে সহীহ ) : যে হাদীসের সনদ অবিচ্ছিন্ন হয়, বর্ণনাকারীরা ন্যায়পরায়ণ ও পূর্ণ আয়ত্ব শক্তির অধিকারী হন এবং সনদটি শা’য ও মু’আল্লাল না হয় সে হাদীসকে সহীহ বা সহীঞ লিযাতিহী বলে । গ্রহণযোগ্য হাদীসগুলোর মধ্যে সহীহ লিযাতিহী’র মর্যাদা সবচেয়ে বেশী।

    সহীহ লিগাইরিহী ( অন্যের কারণে সহীহ ) : এটি মূলথ হাসান লিযাতিহী। যদি হাসান হাদীসের সনদ সংখ্যা অধিক হয় তাহলে এর দ্বারা হাসান বর্ণনাকারীর মধ্যে যে ঘাটতি ছিল তার পূরণ হয়ে যায়। এরুপ অধিক সনদে বর্ণিত হাসান হাদীসকে সহীহ লিগাইরিহী বলে।

    গ্রহণযোগ্য  হাদীসের মধ্যে অন্যতম হলো ‘হাসান’ হাদীস ।

    হাসান হাদীস : হাসান হাদীসের মধ্যেও সহীহ হাদীসের মত উপরোক্ত ৫টি শর্ত বিদ্যমান । কিন্তু দ্বিতীয় শর্তের ক্ষেত্রে যদি সামান্য দুর্বলতা দেখা যায় তবে হাদীসটিকে হাসান বলা হয়। অর্থাত হাদীসের সনদের রাবীগণ ব্যক্তিগতভাবে, সত, প্রত্যেকে হাদীসটি উর্দ্ধতন রাবী থেকে স্বকর্ণে শুনেছেন বলে প্রমাণিত, হাদীসটির মধ্যে “শুযুয’ ও ইল্লাত নেই। তবে সনদের কোন রাবীর “নির্ভুল বর্ণনার’ ক্ষমতা বা ‘যাবত’ কিছুটা দুর্বল বলে বুঝা যায় । তাঁর বর্ণিত হাদীসের মধ্যে কিছু অনিচ্ছাকৃত ভুল-ত্রুটি লক্ষ্য করা যায়। এইরুপ রাবী’র বর্ণিত হাদীসকে ‘হাসান’ হাদীস বলা হয়।

    হাসান হাদীস আবার দুই প্রকারে বিভক্ত :

    হাসান লিযাতিহী ( নিজের গুণে হাসান ): যে হাদীসে বর্ণনাকারীর স্মরণশক্তিতে কিছুটা ঘাটতি রয়েছে কিন্তু সহীহ হাদীসের অবশিষ্ট চারটি শর্ত বহাল রয়েছে তাকে হাসান লিযাতিহী বলে।

    হাসান লিগায়রিহী ( অন্যের কারণে হাসান ) : এটি মুলত দুর্বল হাদীস। কিন্তু যখন তা একাধিক সূত্রে বর্ণিত হয় এবং হাদীসটির বর্ণনাকারী ফাসেক বা মিথ্যার দোষে দোষী হওয়ার কারণে দুর্বল না হয়, তখন এটি অন্যান্য সূত্রগুলোর কারণে ‘হাসান’-এর পর্যায়ভুক্ত হয়ে যায়। তবে এর স্তরটি ‘হাসান লিযাতিহী’র চেয়ে নিম্ন পর্য়ায়ের

    এর আভিধানিক অর্থ সুস্থ। সাধারণত মানুষের শারীরিক সুস্থতার জন্য ‘সহিহ’ ব্যবহৃত হয়, যেমন হাদিসে এসেছে: ” وَأَنْتَ صَحِيحٌ ” ‘তুমি সুস্থাবস্থায়’ এ থেকেই সনদ ও মতন দোষমুক্ত হলে হাদিসকে সহিহ বলা হয়। ‘সহিহ’-র পারিভাষিক সংজ্ঞা প্রসঙ্গে হাফিজ ইবনে হাজার আসকালানী বলেন : هو ما نقله العدل تام الضبط متصل السند غيرمعلل ولا شاذ . “যে হাদিস মুত্তাসিল সনদ তথা অবিচ্ছিন্ন সনদ পরম্পরায় বর্ণিত হয়, রাবী বা বর্ণনাকারী আদিল ও পূর্ণ আয়ত্বশক্তির অধিকারী হয়, এবং সনদটি শায কিংবা মুআল্লাল নয়; এমন হাদিস কে সহিহ বলে। মোটকথা, হাদিস সহিহ হওয়ার জন্য পাঁচটি শর্ত রয়েছে : ১. সনদ মুত্তাসিল হওয়া। ২. রাবির আদিল হওয়া। ৩. রাবির দ্বাবিত হওয়া। ৪. শায না হওয়া। ৫. মু‘আল্লাল না হওয়া। প্রথম শর্ত: اتصال السند বা সনদ মুত্তাসিল হওয়া: সনদ মুত্তাসিল হওয়ার অর্থ, হাদিসের সনদে বিদ্যমান প্রত্যেক রাবি (বর্ণনাকারী) তার শায়খ (শিক্ষক) থেকে সরাসরি হাদিস শ্রবণ করেছেন প্রমাণিত হওয়া। যেমন গ্রন্থকার মুহাদ্দিস বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (প্রথম উস্তাদ), তিনি বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (দ্বিতীয় উস্তাদ), তিনি বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (তৃতীয় উস্তাদ), তিনি বললেন: আমার নিকট বর্ণনা করেছে অমুক (চতুর্থ উস্তাদ)। এভাবে প্রত্যেক রাবি স্বীয় শায়খ থেকে শ্রবণ করেছে নিশ্চিত করলে সনদ মুত্তাসিল। শায়খের অনুমতি গ্রহণ করা, শায়খকে হাদিস শুনিয়ে সম্মতি নেওয়াকে সরাসরি শ্রবণ করা বলা হয়। দ্বিতীয় শর্ত: عدالة الراوى বা রাবির ‘আদল: সহিহ হাদিসের দ্বিতীয় শর্ত রাবির ‘আদল’ হওয়া। عدل ‘আদ্‌ল’ শব্দের অর্থ সোজা ও বক্রতাহীন রাস্তা, যেমন বলা হয় طريق عدل ‘সোজা রাস্তা’। পাপ পরিহারকারী ও সুস্থরুচি সম্পন্ন ব্যক্তি ন্যায় ও সোজা রাস্তার অনুসরণ করে, তাই তাকে ‘আদ্‌ল’ বা ‘আদিল’ বলা হয়। عادل কর্তাবাচক বিশেষ্য, অর্থ ন্যায়পরায়ণ ব্যক্তি। হাদিসের পরিভাষায় দীনদারী ও সুস্থরুচিকে عدالة বলা হয়। ‘আদিল’ এর পারিভাষিক সংজ্ঞা: মুসলিম, বিবেকী, সাবালক, দীন বিরোধী কর্মকাণ্ড থেকে মুক্ত ও সুস্থ রুচির অধিকারী ব্যক্তিকে উসুলে হাদিসের পরিভাষায় ‘আদিল’ বলা হয়। নিম্নে প্রত্যেকটি শর্ত প্রসঙ্গে আলোকপাত করা হলো: মুসলিম : রাবির ‘আদিল হওয়ার জন্য মুসলিম হওয়া জরুরি। অতএব কাফের ‘আদিল’ নয়, তার হাদিস সহিহ নয়। কাফের কুফরি অবস্থায় হাদিস শ্রবণ করে যদি মুসলিম হয়ে বর্ণনা করে, তাহলে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য। কারণ সে সংবাদ দেওয়ার সময় আদিল, যদিও গ্রহণ করার সময় আদিল ছিল না। যেমন জুবাইর ইব্‌ন মুতয়িম রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু বলেন: «سَمِعْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقْرَأُ فِي الْمَغْرِبِ بِالطُّورِ» “আমি নবি সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামকে মাগরিবের সালাতে সূরা তূর পড়তে শুনেছি”। তিনি শুনেছেন কাফের অবস্থায়, আর বর্ণনা করেছেন মুসলিম অবস্থায়। (বুখারি ও মুসলিম) সাবালিগ : রাবির আদিল হওয়ার জন্য সাবালিগ হওয়া জরুরি। কেউ শৈশবে হাদিস শ্রবণ করে যদি সাবালিগ হয়ে বর্ণনা করে, তাহলে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য, সাবালিগ হওয়ার পূর্বে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য নয়। কতক সাহাবির ক্ষেত্রে এ শর্ত প্রযোজ্য নয়, যেমন ইব্‌ন আব্বাস, ইব্‌ন যুবায়ের ও নুমান ইব্‌ন বাশির প্রমুখ, তাদের হাদিস শৈশাবস্থায় গ্রহণ করা হয়েছে। বিবেকবান : রাবির আদিল হওয়ার জন্য বিবেক সম্পন্ন হওয়া জরুরি। বিবেকহীন ও পাগল ব্যক্তির বর্ণনা গ্রহণযোগ্য নয়। পাগল দু’প্রকার: স্থায়ী পাগল ও অস্থায়ী পাগল। স্থায়ী পাগলের হাদিস কোনো অবস্থায় গ্রহণযোগ্য নয়। অস্থায়ী পাগলের মধ্যে যদি সুস্থাবস্থায় সহিহর অন্যান্য শর্ত বিদ্যমান থাকে, তাহলে তার হাদিস গ্রহণযোগ্য, তবে শ্রবণ করা ও বর্ণনা করা উভয় অবস্থায় সুস্থ থাকা জরুরি। দীনদারী : রাবির ‘আদিল হওয়ার জন্য দীনদার হওয়া জরুরি, তাই পাপের উপর অটল ব্যক্তি আদিল নয়। পাপ হলেই ‘আদল বিনষ্ট হবে না, কারণ মুসলিম নিষ্পাপ নয়, তবে বারবার পাপ করা কিংবা কবিরা গুনায় লিপ্ত থাকা ‘আদল পরিপন্থী। দীনের অপব্যাখ্যাকারী, তাতে সন্দেহ পোষণকারী ও বিদ‘আতির হাদিস গ্রহণ করা সম্পর্কে আহলে ইলমগণ বিভিন্ন শর্তারোপ করেছেন। সুস্থ রুচিবোধ : রাবির ‘আদল হওয়ার জন্য সুস্থ রুচিবোধ সম্পন্ন হওয়া জরুরি। সুস্থ রুচিবোধের নির্দিষ্ট কোনো সংজ্ঞা নেই। প্রত্যেক সমাজের নির্দিষ্ট প্রথা, সে সমাজের জন্য মাপকাঠি, যা স্থান-কাল-পাত্র ভেদে নানা প্রকার হয়। সাধারণত সৌন্দর্য বিকাশ ও আভিজাত্য প্রকাশকারী কর্মসমূহ সম্পাদন করা এবং তুচ্ছ ও হেয় প্রতিপন্নকারী কর্মসমূহ পরিত্যাগ করাকে সুস্থ রুচিবোধের পরিচায়ক বলা হয়। হাফেয ইব্‌ন হাজার রাহিমাহুল্লাহ ‘আদল’ এর সংজ্ঞা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আদল’ ব্যক্তির মধ্যে এমন যোগ্যতা, যা তাকে তাকওয়া ও রুচিবোধ আঁকড়ে থাকতে বাধ্য করে”। অতএব ফাসেক ও আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী ‘আদিল’ নয়, যদিও সে সত্যবাদী। জামাত ত্যাগকারী ‘আদিল’ নয়, যদিও সে সত্যবাদী, সুতরাং তাদের বর্ণনাকৃত হাদিস সহিহ নয়। আল্লাহ তাআলা বলেন, يَٰٓأَيُّهَا ٱلَّذِينَ ءَامَنُوٓاْ إِن جَآءَكُمۡ فَاسِقُۢ بِنَبَإ فَتَبَيَّنُوٓاْ أَن تُصِيبُواْ قَوۡمَۢا بِجَهالَة فَتُصۡبِحُواْ عَلَىٰ مَا فَعَلۡتُمۡ نَٰدِمِينَ ٦ [الحجرات: ٦ “হে ঈমানদারগণ, যদি কোনো ফাসেক তোমাদের কাছে কোনো সংবাদ নিয়ে আসে, তাহলে তোমরা তা যাচাই করে নাও। এ আশঙ্কায় যে, তোমরা অজ্ঞতাবশত কোনো কওমকে আক্রমণ করে বসবে, ফলে তোমরা তোমাদের কৃতকর্মের জন্য লজ্জিত হবে”। ফাসেক ব্যক্তির সংবাদ যাচাই ব্যতীত গ্রহণ করা যাবে না, পক্ষান্তরে আদিল ব্যক্তির সংবাদ গ্রহণযোগ্য। আল্লাহ বলেন, وَأَشۡهِدُواْ ذَوَيۡ عَدۡلٖ مِّنكُمۡ وَأَقِيمُواْ ٱلشَّهَٰدَةَ لِلَّهِۚ ٢ [الطلاق : ٢ “আর তোমাদের মধ্য থেকে ন্যায়পরায়ণ দু’জন সাক্ষী বানাবে। আর আল্লাহর জন্য সঠিক সাক্ষ্য দেবে।”। এ আয়াতে আল্লাহ ‘আদিল’ ব্যক্তিদের সাক্ষীরূপে গ্রহণ করার নির্দেশ দিয়েছেন। সারাংশ : ‘আদিল’ ব্যক্তির মধ্যে দু’টি গুণ থাকা জরুরি: দীনদারী ও সঠিক রুচিবোধ। এ দু’টি গুণকে ‘আদালত’ বলা হয়। কখনো ‘আদিল’ ব্যক্তির জন্য ক্রিয়াবিশেষ্য ‘আদ্‌ল’ শব্দ ব্যবহার করা হয়, যেমন লেখক বলেছেন: يرويه عدل এখানে ‘আদ্‌ল’ অর্থ ‘আদিল’। অত্র গ্রন্থে আমরা আদিল, আদালত ও আদ্‌ল শব্দগুলো অধিক ব্যবহার করব, তাই পাঠকবর্গ ভালো করে স্মরণ রাখুন। তৃতীয় শর্ত: ضبط الراوىরাবির জাবত বা সংরক্ষণ: সহিহ হাদিসের দ্বিতীয় শর্ত রাবির ‘দাবত’। ضبط ক্রিয়াবিশেষ্য, আভিধানিক অর্থ নিয়ন্ত্রণ। এ থেকে যিনি শায়খ থেকে হাদিস শ্রবণ করে নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হন, তাকে ضابط বলা হয়। ‘দ্বাবিত’ কর্তাবাচক বিশেষ্য, অর্থ সংরক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণকারী। ضبط এর পারিভাষিক অর্থ: শায়খ থেকে শ্রবণ করা হাদিস হ্রাস, বৃদ্ধি ও বিকৃতি ব্যতীত অপরের নিকট পৌঁছে দেওয়াই ضبط। ضبط দু’প্রকার: স্মৃতি শক্তির জাবত ও খাতায় লিখে জাবত। সাহাবি ও প্রথম যুগের তাবেয়িগণ স্মৃতি শক্তির উপর নির্ভর করতেন, পরবর্তীতে লেখার ব্যাপক প্রচলন হয়। তখন থেকে স্মৃতি শক্তি অপেক্ষা লেখার উপর নির্ভরতা বৃদ্ধি পায়, তবে লিখিত পাণ্ডুলিপি নিজ দায়িত্বে সংরক্ষণ করা জরুরি। চতুর্থ শর্ত : عدم الشذوذ বা ‘শায’- না হওয়া : ‘মাকবুল বা গ্রহণযোগ্য রাবি যদি তাদের চেয়ে উত্তম বা অধিক নির্ভরযোগ্য রাবিদের বিপরীত বর্ণনা করে, তাহলে তাদের বর্ণনাকে শায বলা হয়’। সুতরাং কোন হাদিস সহী হতে হলে এমন না হওয়া। মকবুল অর্থ গ্রহণযোগ্য রাবি, যার একা বর্ণিত হাদিস ন্যূনতম পক্ষে ‘হাসানে’-র মর্যাদা রাখে। মকবুলের চেয়ে উত্তম রাবিকে সেকাহ বলা হয়, যার একা বর্ণিত হাদিস ‘সহিহ’-র মর্যাদা রাখে। পঞ্চম শর্ত : عدم العلة কোন ধরনের ইল্লত না থাকা : ইল্লত দ্বারা উদ্দেশ্য সুপ্ত ও গোপন ইল্লত বা ত্রুটি, বিজ্ঞ মুহাদ্দিস ব্যতীত যা কেউ বলতে পারে না। সনদ ও মতন উভয় স্থানে দোষণীয় ইল্লত হতে পারে। সহিহ হাদিসের উদাহরণ : حدثنا الحميدي (عبد الله بن الزبير) قال حدثنا سفيان قال حدثنا يحيى بن سعيد الأنصاري قال أخبرني محمد بن إبراهيم التيمي أنه سمع علقمة بن وقاص الليثي يقول سمعت عمر بن الخطاب رضي الله عنه على المنبر قال سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول * إنما الأعمال بالنيات وإنما لكل امرئ ما نوى فمن كانت هجرته إلى دنيا يصيبها أو إلى امرأة ينكحها فهجرته إلى ما هاجر إليه – বর্ণিত হাদিসটির সনদে ইমাম বুখারি থেকে রাসুল সা. পর্যন্ত ৬ জন রাবী রয়েছে। যথা: ১. হুমাইদি (আবদুল্লাহ বিন জুবায়ের) ২. সুফিয়ান ৩. ইয়াহইয়া ইবনে সাঈদ আল আনসারি ৪. মুহাম্মাদ ইবনে ইবরাহিম আত তাইমী ৫. আলকামাহ ইবনে ওয়াক্কাস আল লাইসি ৬. সাহাবি উমর ইবনে খাত্তাব রা. উপরোক্ত প্রত্যেক রাবি নিজ শায়খ থেকে হাদিসটি শুনেছেন যা হাদিসটির সনদে স্পষ্ট উল্লেখ রছেছে। তাই সনদটি মুত্তাসিল। প্রত্যেক রাবী আদিল ও পূর্ণরুপে জাবিত ছিলেন। তাছাড়া বর্ণিত হাদিসটি শায বা মুয়াল্লাল নয়। এ হাদিসটি ইমাম বুখারি রহ. তার সহীহ বুখারিতে সর্বপ্রথম পেশ করেছেন। এতে সহিহ হাদিসের পাঁচটি শর্ত পূর্ণরুপে বিদ্যমান রয়েছে। তাই নি:সন্দেহে এটি একটি সহিহ হাদিস। ।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *