বৌদ্ধধর্ম – নাস্তিকতা নাকি আস্তিকতা? -৩

বিগত দুই পর্বে লিখেছি বৌদ্ধধর্মে আস্তিক্যবাদ ও নাস্তিক্যবাদ নিয়ে। বিভিন্ন মিডিয়ায় বৌদ্ধ ধর্মকে কেউ নাস্তিক্যবাদ, আস্তিক্যবাদ, অদ্বৈতবাদ ইত্যাদি প্রচার করা হয়। বিভিন্ন ধর্মীয় পন্ডিতগণ তাদের বইতে লিখে থাকেন যে বুদ্ধ সৃষ্টিকর্তা বিষয়ে চুপ ছিলেন। কথাটি কতই গোঁজামিলপূর্ণ এই লেখাতে ধরা দেবার চেষ্টা করব। তাছাড়া নাস্তিকবাদীরা কী প্রার্থণা করে? তাঁরা কী স্বর্গ নরক বিশ্বাস করে? তারা কী পূণঃজন্ম বিশ্বাস করে? বোধিগাছের নিচে ৬ বছর কঠোর সাধনা করার পর গৌতম বুদ্ধত্ব লাভ করেন? তাহলে সেই লাভটি কোত্থেকে ও কীভাবে আসে?
বৌদ্ধ ধর্ম যদি নাস্তিক্যবাদ ধর্ম হয় তাহলে বুদ্ধ কীভাবে নাস্তিকবাদীকে মিথ্যাদৃষ্টির সাথে তুলনা করেছেন এবং পঁচাগন্ধ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। গৌতম বুদ্ধ বলেছেন,

বৌদ্ধ

 

যে ইধ কামেসু অসঞ্‌ঞতাজনা, রসেসু গিদ্ধা অসুচিভাবমস্‌সিতা
নত্থিকদিট্‌ঠী বিসমা দুরন্নযা, এসামগন্ধো ন হি মাংসভোজনং (১)
অনুবাদ: এই জগতে যাহারা কামভোগে অসংযত জন, রসাস্বাদে অত্যাসক্ত, অশুচিভাবাশ্রিত, নাস্তিকবাদী বা মিথ্যাদৃষ্টিক, বিষম বা অমার্গ এবং ভ্রান্তপথ অনুসারী তাহারাই আমগন্ধবাদী বা পঁচাগন্ধ শ্রেণিভূক্ত হয়। মাংসভোজনকারী নহে।

এই সূত্রে গৌতম বুদ্ধ নাস্তিকবাদীদেরকে স্পষ্টই পঁচাগন্ধ বলে অভিহিত করেছেন। সাথে সাথে অপরদিকে প্রাণীহত্যা হতে বিরত থাকলেও মাংসভোজনকে স্বীকৃত দিয়েছেন। (প্রাণীহত্যা নিয়ে পরবর্তীতে লেখা হবে। অপেক্ষায় থাকুন।)

তাছাড়া বিভিন্ন ধর্মে যেমন সময় সময় অবতার ও ধর্ম প্রবর্তক এসেছেন। বৌদ্ধধর্মও এর ব্যাতিক্রম নয়। কোন কোন ধর্মে ধর্ম প্রবক্তা আসা বন্ধ হলেও বৌদ্ধ ধর্মে আরো বুদ্ধ আসা বাকী আছে।
অধিকাংশ ধর্মের মত বৌদ্ধ ধর্মেও গৌতম বুদ্ধের আগেও ২৭জন বুদ্ধ এসেছেন বলে বৌদ্ধরা বিশ্বাস করে। গৌতম বুদ্ধ হল আটাশতম বুদ্ধ। তাছাড়া গৌতম ‍বুদ্ধের শাসনকাল ৫০০০ বছর। এখন পর্যন্ত ২৫০০ বছর চলে গিয়েছে। তারপরে আসবেন আর্যমিত্র বুদ্ধ। সকল বুদ্ধের মতো তাঁরও জন্ম হবে সেই বারাণসীতে।

আগেই দুই লেখায় মহাব্রহ্মার সাথে বুদ্ধের সাক্ষাত, আলাপ, আলোচনা ইত্যাদির প্রমাণ দিয়েছি। তাছাড়া মহাব্রহ্মার প্রার্থণা বা অনুরোধে গৌতম বুদ্ধ ধর্ম প্রচার করেন।
কেবল মহাব্রহ্মার সাথে গৌতম বুদ্ধের সাক্ষাত নয় সকল বুদ্ধই মহাব্রহ্মার প্রার্থণায় র্ধম প্রচার করেছে এবং করবেন। মহাব্রহ্মাকে সহম্পতি ব্রহ্মা, ব্রহ্মাও বলা হয়। প্রথম পর্বে মহাব্রহ্মা যে সৃষ্টিকর্তা তার ব্যাখ্যা করেছি। এই লেখার শেষের দিকে আবার পুনরায় প্রমাণ থাকবে। তাহলে সৃষ্টিকর্তা থাকলে বৌদ্ধরা সৃষ্টিকর্তাকে প্রার্থণা না করে বুদ্ধকে কেন প্রার্থণা করে। বৌদ্ধধর্ম মূলত হিন্দু ধর্মের সাথে অনেকটা মিলে যায়। অনেক হিন্দুরাও সরাসরি সৃষ্টিকর্তাকে প্রার্থণা না করে বিভিন্ন দেবদেবী বা দেবতাদের প্রার্থণা করা হয়। (দেবতার সংজ্ঞা দ্বিতীয় পর্বে বিদ্যমান।) তাহলে কী বুদ্ধও দেবতা?

ভগবান (বুদ্ধকে ভগবানও বলা হয় তবে বৌদ্ধ ধর্মে ভগবান মানে ভাগ্যবান) বুদ্ধ নরকের বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেছেন,

বৌদ্ধ

দেবদূত প্রণোদিত মাণবক যদি প্রমাদে পতিত হয়
হীন জন্ম লভি সে জন দীর্ঘকাল অনুতাপী হয়। (সংক্ষেপিত)(২)
অনুবাদঃ স্বর্গীয় দূত প্রচারিত ধর্মে যেসব মানুষ ভ্রান্তিতে পতিত হয় তাঁরা ক্ষণজন্ম হয়ে দীর্ঘকাল অনুতপ্ত হন।

তাহলে এই সূত্রে কোন স্বর্গীয় দূত বা দেবদূত ধর্ম প্রচার করেন? নিশ্চয়ই গৌতম বুদ্ধ ছাড়া আর কেউ নয়। আবার একই সূত্রে নরকের বর্ণনায় আরো বলেছেন তিনি এগুলো শুনে বলেন নাই বরং স্বয়ং জ্ঞাত হয়ে, দর্শণ করে, বিদিত হয়ে নরকের বর্ণনা দিয়েছেন।

বৌদ্ধ ধর্মে উল্লেখ আছে শতবছর পাপকাজ করেও যদি কোন ব্যক্তি একবার বুদ্ধগুণ সর্ম্পকিত স্মৃতি আনতে পারে তিনি স্বর্গে যাবে। কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন একখন্ড লোহাও যেমন নৌকা ছাড়া পানিতে ভাসতে পারে না একটি বড় লোহাও নৌকা ছাড়া পানিতে ভাসতে পারবে না। তাই সমস্ত পুর্ণকর্মকে নৌকা সদৃশ তুলণা করতে হবে? তাহলে এক্ষেত্রে বুদ্ধের সমস্ত পূণ্যকে (শতবছর পাপীরতো আর পূণ্য নেই) নৌকা হিসেবে তুলনা করা হয়েছে। এটি এক প্রকার পাপকাজের লাইসেন্সও বটে! (৩)

বৌদ্ধ

অন্যান্য ধর্মের মতো বৌদ্ধ ধর্মও তার আগের ধর্মগুলোকে অশুদ্ধ বলেছেন।। সহম্পতি ব্রহ্মা গৌতম বুদ্ধকে বলেন,

বৌদ্ধ

উদিত মগধে পূর্ব্বে ধর্ম সমল
নহে সুচিন্তিত তাহা শুদ্ধ নির্মল।
উদঘাটিদ এবে জান অমৃতের দ্বার
জন্ম-জরা-মৃত্যু হতে করিতে উদ্ধার (সংক্ষেপিত)(৪)

তাহলে কে এই সহম্পতি ব্রহ্মা?
সহম্পতি(পুং): সহম্পতি নামক ব্রহ্মা, মহাব্রহ্মা, সৃষ্টিকর্তা, ব্রহ্মা।(৫)

বৌদ্ধ

তাহলে মহাব্রহ্মা ছিল, আছেন, থাকবেন।
এখন পাঠকের কাছে প্রশ্ন উঠবে মহাব্রহ্মা যদি সৃষ্টিকর্তা হন তাহলে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ত্রিপিটক মতে গৌতম বুদ্ধকে প্রার্থণা বা অভিবাদন কেন করবেন? বরং গৌতম ‍বুদ্ধই মহাব্রহ্মাকে প্রার্থণা করবেন? বৌদ্ধধর্ম অনুসারে মহাব্রহ্মা কেবল গৌতম বুদ্ধকেই প্রার্থণা বা অভিবাদন করেন নি। তাঁদের বিশ্বাসমতে গৌতম বুদ্ধের আগেও যেসব বুদ্ধ এসেছেন এবং সামনে যেসব বুদ্ধ আসবেন সব বুদ্ধকেই মহাব্রহ্মা প্রার্থণা করবেন। মনে হয় এটিই সবচেয়ে অনেকের কাছে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন?
এই প্রশ্নের উত্তরও ত্রিপিটকে বিদ্যমান। অনেকেই না জেনে প্রতিবেশি থেকে, বন্ধু-বান্ধব থেকে, মিডিয়া থেকে জেনে বা তারাও তাদের ধর্মকে বিভিন্ন বাদের স্বীকৃতি দেয়।
ত্রিপিটকের ব্যাখ্যা হল সেই সময় সমস্ত লোক এমন কি তপস্বী, শ্রমণ ও ব্রাহ্মণ-ব্রহ্মার উপাসক ছিলেন, ব্রহ্মাকেই গৌরব করিতেন এবং ব্রহ্মপরায়ণ ছিলেন। সেই কারণে যদি সেই বলবান যশস্বী, বিখ্যাত, জ্ঞানী, লোকোত্তর ও সর্বাগ্রগণ্য ব্রহ্মা (ব্রহ্মার বৈশিষ্ট্য লক্ষ করুন) প্রার্থণা করেন তাহলে তাহলে দেবতাসহ সমস্ত মানুষ অবনত হবে, ধর্মকে মান্য করবে, আগ্রহ সহকারে ধর্ম শুনবে, পালন করবে।

যেমন মনে পড়ে কোন এক ঘটনায় আমাদের দেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কয়েকজন এতিম (মাতাপিতা আগুণে দগ্ধ হয়ে মৃত্যু) মেয়েকে নিজের মেয়ে হিসেবে গ্রহণ করে তাদেরকে বুকে জড়িয়ে নেয়। তার মানে কি এই প্রধানমন্ত্রী উক্ত মেয়েদের বুকে জড়িয়েছেন বলে প্রধানমন্ত্রী ছোট হয়ে গেল মেয়েরা প্রধানমন্ত্রীর চেয়েও বড় হয়ে গেল। কখনোই নয় বরং প্রধানমন্ত্রী উক্ত মেয়েদের বুকে টেনে নিয়েছে এবং নিজ দায়িত্বে বিয়ে দিয়েছে বলেই মানুষের, সমাজের কাছে মেয়েগুলোর সম্মাণ, সমাদর, মর্যাদা বৃদ্ধি পেল। ত্রিপিটকের আরো ব্যাখ্যা হল, যদি কোন রাজা বা রাজমন্ত্রী কোন লোককে সম্মাণ ও সমাদর করে, তবে তাঁদের আচরনের জন্য প্রজারাও সেই লোককে সম্মাণ করে ও সমাদর করেন। সেইরূপ বুদ্ধদের সম্মুখে মহাব্রহ্মা প্রণত হলে দেবতাদের সাথে সাথে সমগ্র মানুষ সেই তাঁদের প্রতি অনুগদ হবেন। অর্থাৎ বড় লোকেরা যাহার পূজা করেন তিনি সকলের পূজ্য হন। সেই কারণে মহাব্রহ্মা, সহম্পতি ব্রহ্মা, সৃষ্টিকর্তা সকল বুদ্ধকে ধর্মদেশনার নিমিত্ত প্রার্থণা করেন, আর বুদ্ধগণও সৃষ্টিকর্তার ধর্মদেশনা করেন। তাহলে সকল বুদ্ধই মহাব্রহ্মার সৃষ্টিকর্তার প্রার্থণায় ধর্ম প্রচার করেছেন এবং করবেন। বুদ্ধদেরকে সম্মাণিত, গ্রহণযোগ্য, প্রতিষ্ঠিত করতে যাতে সকল মানুষেরা বুদ্ধদের কথা মান্য করে, গ্রহণ করে, পূজা করে এবং সেই মত চলে।(৬)

বৌদ্ধ

এইবার, তিনপর্ব পড়ে আপনারা বুঝলেন কি বৌদ্ধধর্ম নাস্তিক্যবাদ, আস্তিক্যবাদ, অজ্ঞেয়বাদ, অদ্বৈতবাদ?

রেফারেন্সঃ

  • ১। ত্রিপিটক: সুত্ত পিটক, সুত্ত নিপাত, আমগন্ধং সুত্র ৫ নং শ্লোক, অনুবাদঃ শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির(বনভান্তে)
  • ২। ত্রিপিটক: মধ্যম নিকায়, তৃতীয় খন্ড, দেবদূত সূত্র, অনুবাদঃ শ্রী বিনয়েন্দ্রনাথ চৌধুরী
  • ৩। ত্রিপিটক: মিলিন্দ প্রশ্ন, তৃতীয় বর্গ অনুবাদঃ পন্ডিত শ্রীমৎ ধর্মাধার মহাস্থবির।
  • ৪। ত্রিপিটক: বিনয় পিটক, মহাবর্গ, মহাস্কন্ধ, অনুবাদঃ প্রজ্ঞানন্দ স্থবির
  • ৫। পালি-বাংলা অভিধান, শান্তরক্ষিত মহাস্থবির, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট, ঢাকা)
  • ৬। ত্রিপিটক: মিলিন্দ প্রশ্ন, পঞ্চম রর্গ, অনুবাদঃ পন্ডিত শ্রীমৎ ধর্মাধার মহাস্থবির

লিখেছেনঃ Sina Ali

One thought on “বৌদ্ধধর্ম – নাস্তিকতা নাকি আস্তিকতা? -৩

  • June 14, 2020 at 8:07 PM
    Permalink

    আমার প্রশ্ন, গৌতম বুদ্ধই এই কথাগুলো বলেছেন তার প্রমাণ কী?? ত্রিপিটকে থাকলেই হয়ে গেল প্রমাণ??
    ,
    আরে ভাই ২৫০০ বছরের বেশি পুরনো তথ্য কী এতদিন অপরিবর্তিত থাকতে পারে?? যেখানে ত্রিপিটকই বহুবার পরিবর্তন হয়েছে সেখানে ত্রিপিটককে প্রমাণ হিসেবে কীভাবে নিতে পারেন আপনি??জাতকে প্রাণীরা কথা বলে, হাস্যকর।
    ,
    গৌতম বুদ্ধ নিজেও বলেছেন কোনো গ্রন্থকে অযৌক্তিকভাবে স্বতঃপ্রমাণিত স্বীকার না করতে।
    ,
    ত্রিপিটকে লেখা অযৌক্তিক অংশগুলো সংশোধন করা অসম্ভব কিছু নয়। কারণ এটাতো বুদ্ধেরই লেখা নয়।
    ,
    স্পষ্ট কথা, মহামতি গৌতম বুদ্ধ বলেছেন- গুরু বলেছে বলেই বিশ্বাস করতে হবে এমন কোন কথা নেই, জাতি বলেছে বলেই বিশ্বাস করতে হবে তাও নয়, শাস্ত্রে আছে বলেই মেনে নিতে হবে এমন নয়, আগে
    ✓✓✓✓✓বোধগম্য কিনা দেখো, পরীক্ষণ চালাও, ✓✓✓✓✓গ্রহণীয় হলে গ্রহণ করো
    ✓✓✓✓✓যেটা বাস্তবিক কল্যাণকর ও শ্রদ্ধার।
    ,
    আপনি নিশ্চয়ই এ কথাটা এখানে বিস্তারিত দেখেছেন,কেসমুত্তিসুত্ত,অঙ্গুত্তর শিখায়, সূত্র পিটক। আমি হুবুহু তুলে ধরি নি ।
    ,
    এজন্য আমরা ত্রিপিটকের পুরোপুরি তথ্য গ্রহণ করিনা। আমিও যুক্তিতে বিশ্বাস করি।
    ✓✓✓✓✓[কোনো সুস্থ মস্তিষ্কের যুক্তিবাদী মানুষ দেবদেবী,ব্রহ্মা, ইত্যাদি অলৌকিক কিছুকে বিশ্বাস করতে পারে না]✓✓✓✓✓
    ,
    বৌদ্ধ মতবাদ নিয়ে ব্লগে লিখতে কমপক্ষে পঞ্চাশ টা বই পড়ুন এবং আরো গভীর ভাবে গবেষণা করুন। আমার পছন্দের লেখক রাহুল সংকৃত্যায়ন।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *